চলুন ঘুরে আসি তিস্তা ব্রিজ ও সেতু থেকে – সুন্দর একটি প্রতিবেদন

রংপুর

তিস্তা রেলওয়ে ব্রিজ (Teesta Bridge) বাংলাদেশের রংপুর জেলার একটি পুরাতন রেল সেতু। যদিও এটি একটি রেলসেতু হিসাবে নির্মিত হয়েছিল, ১৯৮৬ সালের ৪ মার্চ থেকে এটি যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। ২০১২ সালে তিস্তা সড়ক সেতুটি বর্তমান ব্রিজের পাশেই নির্মিত করা হলে। তিস্তা রেল সেতুর উপর যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। ব্রিজটি বর্তমানে কেবল রেল চলাচলের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে।

রেলওয়ে তিস্তা ব্রিজের ইতিহাসঃ

উত্তরবঙ্গ রাজ্য রেলওয়ে সংস্থা ১৮৫৩ সালে ব্রিটিশ ভারতে প্রাথমিক রেল পরিষেবা চালু করেছিল। এর পরে, ১৮৭৯ খ্রিস্টাব্দে, দুর্ভিক্ষের সময় ত্রাণ সরবরাহের জন্য কলকাতা থেকে পাবার্তিপুর পর্যন্ত রেলপথ সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়েছিল। ১৮৭৯ খ্রিস্টাব্দে, এক মিটারগেজ রেলপথ পার্বতীপুর থেকে কাউনিয়া হয়ে রংপুর শহর পর্যন্ত প্রসারিত হয়েছিল। পরে এটি লালমনিরহাটের সাথে সম্পর্কিত হয়েছিল।

তিস্তা নদীর উপরে সেতু তৈরি করা সম্ভব না হওয়ায়, নদী পার হওয়ার জন্য একটি বাষ্প চালিত ফেরিটির ব্যবস্থা করা হয়েছিল। তারপরে ১৮৯৯-১৯০০ সালে তিস্তা নদীর উপরে রেলসেতু নির্মিত হয়েছিল। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যখন সেতুটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল তখন ১৯৮৮ সালে অন্য একটি সেতু থেকে স্প্যান, গার্ডার এবং অন্যান্য সরঞ্জাম সংগ্রহ করে এটি মেরামত করা হয়েছিল। বর্ধিত সময়ের জন্য, এই ব্রিজটি কেবল রেল যোগাযোগের জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল।

তিস্তা ব্রিজ
তিস্তা ব্রিজ

সড়ক যোগাযোগের জন্য বিকল্প সেতুর বিকাশ অত্যন্ত ব্যয়বহুল হবে এবং এর সাথে সড়ক যোগাযোগ চালু করার সম্ভাব্যতা এবং উপযোগিতা যাচাইয়ের পরে, পাশের রেলপথ ধরে সড়ক যোগাযোগ আনুষ্ঠানিকভাবে মার্চ, ১৯৮৬ সালে শুরু হয়েছিল। তখন থেকে রেল ও সড়ক যোগাযোগ উভয়ই অব্যাহত রয়েছে রেলওয়ে তিস্তা ব্রিজ। লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম জেলা, রংপুর ও অন্যান্য জেলার মধ্যে যোগসূত্র হিসাবে সেতুটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

তিস্তা দ্বিতীয় ব্রিজের (সেতুর) কথাঃ

কেএফএইড সহায়তায় রংপুর জেলার কাউনিয়া উপজেলাইয় লালমনিরহাট-রংপুর মহাসড়কে তিস্তা নদীর উপর অবস্থিত ২য় ব্রিজ। উক্ত ব্রিজটির নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০০৬ সালে এবং সমাপ্ত হয় ২০১২ সালের জুন মাসে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ২০ সেপ্টেম্বর ২০১২ খ্রিস্টাব্দে ব্রিজটি উদ্বোধন করা হয়। ব্রিজটি নির্মাণে প্রকল্পের মোট ব্যয়: ১৪.৯৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থাৎ বাংলাদেশী টাকায় মোট ব্যয় ১২২.০৯ কোটি টাকা।

তিস্তা সেতু
তিস্তা সেতু

তিস্তা দ্বিতীয় ব্রিজের (সেতু) মূল বৈশিষ্ট্যঃ

  • প্রাক চাপ উপর কাজ
  • সিভিল এবং স্ট্রাকচারাল কাজ (জলবাহী কাজ)
  • নদী শাসন 760 মিটার।
  • অ্যাপ্রোচ রোড 2.29 কিঃমি
  • নদী প্রশিক্ষণ ও ব্যাংক সুরক্ষা কাজ
  • বিশ্ব ওয়ার্ক
  • আরসিসি কেইসন (জলের সামনে নির্মাণ)
  • আরসিসি কেসন ডুবে যাওয়ার জন্য অস্থায়ী জেটি
  • ব্রিজের দৈর্ঘ্য – 750.00 মি
  • প্রস্থ- 12.110 মি
  • স্প্যানের সংখ্যা- 15 টি।
  • পি.সি. এর নম্বর গার্ডার- 75 টি।
  • পাইয়ারের সংখ্যা – 14 টি।

রংপুর তিস্তা নদীর উপর নির্মিত দ্বিতীয় ব্রিজের (সেতু) অঞ্চলে অর্থনৈতিক উন্নয়ন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১২ এপ্রিল, ২০১২ এ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করার পর রংপুর ও লালমনিরহাট জেলার মোড়কে মহিপুর-কাকিনা পয়েন্টে প্রায় ১২২ কোটি টাকা ব্যয়ে ৮ 8০ মিটার সড়ক সেতু নির্মাণ করেছে এলজিইডি। ।

গতকাল এপ্রিলে যোগাযোগের নেটওয়ার্ক সহজ করতে এবং রংপুর ও লালমনিরহাট জেলার ছয়টি উপজেলার ১৮ লক্ষাধিক মানুষের দীর্ঘদিনের লালিত চাহিদা পূরণে এ সেতুটি যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করেছে।

বিদায়ী বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ বলেছিলেন, সেতুটি চালু করা এ অঞ্চলের মানুষের অর্থনৈতিক ও সামাজিক সুবিধার্থে উন্নয়নের গতি বাড়িয়ে তুলবে।

“তিস্তা সেতুটি আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সম্প্রসারণ এবং জনগণের আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তনের জন্য কৃষি, স্বাস্থ্য এবং অন্যান্য অনেক ক্ষেত্রের উন্নয়নের জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতিতে অগ্রগতিতে এক নতুন প্রবেশাধিকার উন্মুক্ত করেছে,” তিনি বলেছিলেন।

স্থানীয় বাসিন্দা আবদুল মালেক, আবু তোরাব, গঙ্গাচড়া ও কাকিনা উপজেলার আনোয়ারা বেগম বলেন, এই সেতুটি বিভাগীয় শহর রংপুর, রাজধানী ঢাকা থেকে কাউনিয়া এবং দেশের অন্যান্য অংশের সাথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করেছে।

এর আগে, লালমনিরহাট ও রংপুরের মধ্যে সরাসরি সড়ক যোগাযোগের জন্য দুই জেলার ছয় উপজেলার ১৮-লক্ষ মানুষের তিস্তা নদী প্রধান বাধা ছিল এবং বর্ষাকালে পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছিল, তারা বলেছিল।

রংপুরের আমদানিকারক এনামুল হক সোহেল বলেছিলেন, “বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত নেপাল (বিবিআইএন) দেশগুলির মধ্যে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বাড়ানোর জন্য ব্রিজটি কাউনিয়া ও রংপুরের মধ্যে ৬০০ কিমি দূরত্ব হ্রাস করেছে।”

“এই সেতুটি কম সময়ে এবং ব্যয়ে রফতানি-আমদানি পণ্য পরিবহনে সহজ করবে এবং বিএলপির মাধ্যমে বিবিআইএন দেশগুলির মধ্যে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য আরও বাড়ানোর জন্য এই অঞ্চলে যৌথ বিনিয়োগকে উত্সাহিত করবে,” সোহেল বলেছিলেন।

বিএলপিতে বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক ব্যবসায়ী সাইদুজ্জামান বলেছিলেন, “দ্বিতীয় তিস্তা রোড সেতুটি চালুর আগে বুড়িমারী-লালমনিরহাট-বড়োবাড়ি রুট হয়ে ঢাকা ও রংপুরের যাত্রা বিপদজনক ও অস্বস্তিকর ছিল।”

আরও জানতে পড়ুন: স্বপ্নের পদ্মা সেতু সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান

বিনোদনের জনে তিস্তা সেতু ও ব্রিজঃ

বাংলাদেশে বিভিন্ন যায়গায় বিভিন্ন ধরনের পর্যটিন কেন্দ্র বা বিনোদনের যায়গা রয়েছে। তার মধ্যে তিস্তা ব্রিজ বর্তমান উত্তর বঙ্গের একটি নতুন পর্যটন বা বিনোদন কেন্দ্র হিসাবে দেখা যায়। তিস্তা ব্রিজের দুই পারে যায়গাটি মনোমুগ্ধ পরিবেশ হওয়ায় বিভিন্ন যায় গায় থেকে দেখতে আসে অনেক মানুষ।

তিস্তার দুই পাড়ের এই অপরূপ সৌন্দর্য সব মানুষকেই মন প্রাণ আকৃষ্ট করে তুলে। তিস্তা ব্রিজের মেইন পয়েন্ট থেকে দারালে অর্থাৎ দেখতে অনেক সুন্দর লাগে। আরো আকৃষ্ট করেছ তিস্তা ২য় ব্রিজটি হওয়ার পর বহুগুণ আকর্ষণ বেড়েছে। উত্তর বঙ্গের সরকারি বা বেসরকারী ছুটির দিন গুলোতে বিভিন্ন পেশা জীবী মানুষ এবং স্কুল কলেজের ছাত্র- ছাত্রীরা এমন কি পরিবার বন্ধ বান্ধ্বী নিয়ে ঘুরতে আসে সেখানে।

তুলনা মূলক অন্যন্য দিন গুলোর চাইতে মুসলমানদের ঈদের দিন বিকেল বেলা ভীর করে বেশি। এই ব্রিজের আশপাশে ও তিস্তার পাড়ে অনেকেই নৌকায় চড়ে মন ভরে দেখছেন সোনার বাংলাদেশের উত্তর বঙ্গের এই তিস্তা ব্রিজ। আগতদের কে অ্যাপপায়ন করার জন্য দুই পাড়ে হোটেল বা চা-ইষ্টল চালু হয়েছে। দূর দূরান্ত থেকে আগত মানুষদেরকে দুই পাড়ের মানুষ আথীতিয়তার সাথে অ্যাপপায়ন করেন।

2 thoughts on “চলুন ঘুরে আসি তিস্তা ব্রিজ ও সেতু থেকে – সুন্দর একটি প্রতিবেদন

  1. Спасибо за достоверную информацию. Яндекс Пробки В Иркутске Сейчас Онлайн. Тут пробки иркутск сейчас . С помощью параметров можно включить дорожные события и посмотреть статистику пробок за прошлое время. Масштабирование карты (изменение размера карты осуществляется нажатием на кнопки “+” или “-“). При увеличении карты информация о пробках онлайн детализируется. Пробки в Иркутске 18 сентября – девятибалльные.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *